ঘর সাজানো সামগ্রী

ঘর সাজানোর সামগ্রী এবং টিপসসমূহ।

আসসালামু আলাইকুম, প্রিয় পাঠক আজকের এই ব্লগে আপনারা জানবেন, কিভাবে আপনার ঘর সাজাবেন? কোথায় কোন আসবাবপত্র রাখা উচিত? কোথায় থেকে সংগ্রহ করবেন ঘর সাজানো সামগ্রী সমূহ? এবং ঘরে কোন ধরনের রং করা দরকার? চলুন কথা না বাড়িয়ে মূল প্রসঙ্গে আসি।

বাসা- বাড়ি কিংবা ঘর আপনি যাই সুন্দর করে সাজাতে যদি চান তাহলে সর্বপ্রথম আপনার রুচি সম্পর্কে জানতে হবে। কারন, আমাদের রুচি যদি ভালো হয় তাহলে যেকোনো কিছুই সম্ভব। সেক্ষেত্রে আপনি আপনার ঘর সাজানোর পূর্বে অবশ্যই আপনার রুচির পরিবর্তন করে ফেলুন।

কর্মক্ষেত্রের কারনে অনেকেই এখন নিজের গ্রামের বাড়ি- ঘর ছেড়ে শহরে এসেছে। তাই শহরে আর্থিক সমস্যার কারনে বাড়ি/ ফ্ল্যাট কিনতে সবাই পারে না সেক্ষেত্রে ভাড়া বাসাতেই থাকতে হয় তাদের। ভাড়া বাসাতে ঘরের দৈর্ঘ্য, প্রস্থ আপনি পরিবর্তন না করতে পারলে ও আপনি ঘরের রং, ফার্নিচার পরিবর্তনসহ নানা সৃজনশীল কর্মকান্ডের মাধ্যমে আপনি আপনার ভাড়া বাসাকে মনোরম করে সাজাতে পারবেন।

আপনি যখন নতুন ঘরে উঠবেন তখন নতুন ফার্নিচার, সোফা ইত্যাদি কিনার আগেই ভাবুন কেমন ধরনের কিনলে আপনার জন্য ভালো হবে, আগেই আপনি একটু চিন্তা করে নিবেন।

পুরাতন ঘরকে নতুন করে সাজান

null 1

ধরলাম আপনি ২-৩ বছর আগে থেকে আপনার ঘর সাজিয়েছিলেন আর এখন আপনার কাছে ঘরের ডিজাইন ভালো লাগছে না। সেক্ষেত্রে আপনি ঘরের আসবাবপত্র নাড়াচাড়া করুন। একটু ডিফরেন্ট ওয়েতে চিন্তা করুন।

ধরেন আপনার সোফা ছিলো পূর্বদিকে সেই সোফাকে দক্ষিন দিকে অথবা অন্য কোনো দিকে নিয়ে দেখুন কেমন লাগে। এভাবে করে আপনার পুরাতন গোছানো ঘরটা নাড়াচাড়া করে সুন্দর করে গুছিয়ে আপনি ও আপনার ঘরে নতুনত্ব আনতে পারেন। ঘরে নতুন সোফা প্রয়োজন হলে এখানে দেখতে পারেন link:

ছবির মাধ্যমে ঘর সাজান

null 2

আপনার ঘরের পুরাতন ছবির এলবাম, পুরাতন ক্যালেন্ডার, পুরাতন ছবি নতুনভাবে আপনার ঘরের দেয়ালে বাধান। অথবা আপনি আপনার ক্যামেরা কিংবা স্মার্টফোনে তুলা ছবি ও বাধাই করে দেয়ালে লাগাতে পারেন৷ শুধু আপনার ছবি নয় আপনি চাইলে আপনার যেকোনো পছন্দের ছবি বাধাই করে ঘরের দেয়ালে লাগাতে পারেন।

ছবির ফ্রেম লাগলে এখানে ভিজিট করতে পারেন link:

কাগজের ফুল এবং পেইন্টিং করে ঘর সাজান

null 3

কাগজের ব্যবহার কিংবা নানারকম নকশা ব্যবহার করে আপনার ঘরকে আর্কষনীয় করতে পারবেন। নানা ধরনের নকশা এবং কাগজের ফুল আপনি না বানাতে পারলে ও এখন আপনি অনলাইনেও কাগজের ফুল এবং নকশা কিনতে পারবেন।

এছাড়াও বাজারে এখন থ্রিডি ওয়ালপেপার পাওয়া যাচ্ছে যেগুলো দিয়ে আপনার ঘরকে সুসজ্জিত করতে পারেন। থ্রিডি ওয়ালপেপার সম্পর্কে জানতে এখানে দেখুন: Link

ঘরকে সুন্দর করে সাজাতে চাইলে যেসব বিষয় গুলি বিবেচ্য

চলুন এবার জেনে নেই কিভাবে আপনার ঘরকে সুন্দর করবেন?

আয়না

ঘরে আমরা সকলেই আয়না ব্যবহার করে থাকি। বর্তমানে বাজারে নানা ধরনের সুন্দর সুন্দর ভিন্ন ভিন্ন মডেলের আয়না পাওয়া যায় । সেখান থেকে আপনি ও আপনার পছন্দমতো আয়না কিনুন৷

ঘরের রং

null 4

ঘরের রং এর সঠিক ব্যবহার করুন৷ ঘরে রং দেয়ার জন্য আপনার পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলুন। আর ভালো রং ব্যবহারের মাধ্যমেই আপনার চিন্তাধারা, রুচির বহিঃপ্রকাশ পাওয়া যাবে৷ ঘরের রং এর মিল রেখে আপনি ঘরের ডিম লাইট ব্যবহার করতে পারেন। যেমন : আপনার ঘরের রং যদি নীল রং এর হয় তাহলে আপনি নীল রং এর ডিম লাইট ব্যবহার করতে পারেন৷

শোবার ঘর বা বেড রুম

bed room

আপনি যেরুমে ঘুমাবেন সেই রুমকে হালকা এবং মনোরমভাবে সুন্দর করে সাজাতে পারেন। আপনার বেড রুমের জন্য অন্য কালারফুল রং এর চাইতে হালকা রং এর ব্যবহার করাটাই শ্রেয়। অতি প্রয়োজনীয় জিনিশ ছাড়া অন্য কিছু বেড রুমে না রাখাটাই ভালো।

বাচ্চাদের ঘর

null 6

বাচ্চাদের ঘরে আপনি বিভিন্ন কালারফুল ওয়ালপেপার অথবা কালারফুল রং ব্যবহার করতে পারেন। এর পাশাপাশি বাচ্চাদের পছন্দের কার্টুন, তারা, চাঁদ এসবের স্টিকার ও লাগাতে পারেন।

null 7

ঘরের বারান্দা

ঘরের বারান্দা
ঘর সাজানো সামগ্রী

আপনার বাসায় বারান্দার করুন সঠিক ব্যবহার। বারান্দায় আপনি ছোটোখাটো বাগান অথবা ফুলের গাছ লাগাতে পারেন। এর পাশাপাশি বারান্দায় আপনি চা কফি খেলে ও মন্দ হয় না। এই ব্যাপারটি আপনার মনে এক ধরনের প্রশান্তি বয়ে দেবে।

খাবার ঘর ও ঘরের লে-আউট

null 9

খাবার ঘরের ক্ষেত্রে পরিবার বড় হলে অথবা মেহমানদের কথা চিন্তা করলে আপনি বড় ডায়েনিং টেবিল নিতে পারেন। ডায়েনিং টেবিলে আপনি আপনাদের পরিবারের ছবি দেয়ালে আটকাতে পারেন। চেষ্টা করুন আপনার ডায়েডিং টেবিল সর্বদা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা। এর পাশাপাশি আপনি খাবার ঘরকে আলোকিত করার চেষ্টা ও করবেন। খাবার ঘরের ফার্নিচার গুলো একটু ছিমছাম ডিজাইনের হলে আরো সুন্দর হয়।

রান্নাঘর এবং টয়লেট

null 10

আপনার রান্নাঘর এবং টয়লেট কিংবা বাথরুম পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। কেননা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার মাধ্যমে আপনার রুচির বহিঃপ্রকাশ পাওয়া যাবে।

রান্নাঘরে রান্না করার সময় মাথার চুল ঢেকে রাখা উচিত কেননা যেকোনো সময় মাথার চুল খাবারে পর‍তে পারে। আপনার বাথরুম প্রতি সপ্তাহে একবার পরিষ্কার করুন।

বাথরুমে আপনি হালকা পানি কালার কিংবা আকাশী নীল কালার টাইলস লাগাতে পারেন। এছাড়া বাথরুমে টিস্যু, হারপিক এবং ক্লিনার রাখা জরুরি।

বর্তমান সমাজ আধুনিক। সবাই চায় নতুনত্ব এবং আধুনিকতার ছোঁয়া লাগাতে। আর এই আধুনিকতার যুগে আপনি আপনার পরিচয়, রুচি প্রকাশের জন্য নিজের ঘরকে এভাবে নানাভাবে নানা উপায়ে সাজাতে পারেন৷

রিডিং রুমে:

নিজের পড়াশোনার ঘরকে আর ও আকর্ষনীয় করে তুলা যতটা কঠিন মনে হয় আসলে ততটা কঠিন নয়।

null 11

দীর্ঘ গবেষণার পরে দেখা গেছে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি যারা অনুসরণ করে তারা সাকসেস বেশি হয়।

  • পড়ার টেবিলে উল্টাপাল্টা করে থাকা বই গুলো সুন্দর করে গুছান। বইয়ের জায়গায় বই রাখুন এবং খাতার জায়গায় খাতা রাখুন। কলম, পেন্সিল এগুলো একসাথে রাখুন। পড়ার রুম নিরিবিলি এবং এমন রুম বাছাই করুন যেনো সকালবেলা ঘরে রোদ আসতে পারে৷ তাছাড়া পড়ার টেবিলের সামনে আপনি কাগজের ফুল ও লাগাতে পারেন।
  • পড়ালেখা করার পর আপনার টেবিলে থাকা বইগুলোকে সেলফে রেখে দিন। টেবিলে থাকা বইগুলোকে তাই নির্দিষ্ট জায়গায় সেলফে রাখুন এবং পড়ার টেবিলের আকর্ষনীয়তস বৃদ্ধি করুন।
  • পড়ার ঘরে টেলিভিশন রাখা যাবে না৷ এমনকি কম্পিউটার ও রাখা যাবে না৷ এতে আপনার পড়ালেখারই ক্ষতি।
  • আপনার পড়ার টেবিল নিয়মিত পরিষ্কার করুন কারন প্রতিদিন অল্প অল্প করে অনেক ধুলো জমে থাকে। পরিষ্কার করার সময় পড়ার টেবিলের প্রতিটি কোণা ভালোভাবে পরিষ্কার করুন।
  • দিনের বেলায় পড়ার টেবিলে আপনি দিনের আলোয় পড়াশোনা করুন। সন্ধ্যার পরে ভালো পাওয়ারের লাইট লাগিয়ে পড়াশোনা করুন।

এভাবে আপনি আপনার পড়ার রুম এবং পড়ার টেবিল গুছাতে পারেন।

নিজের বাসা বাড়িকে সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলতে আপনি ভালোভাবে বুদ্ধি কাটিয়ে রং এর ব্যবহার করলে আপনার ঘর সুন্দর করে ফুটে উঠবে।

পেইন্টিং:

চলুন জেনে নেই কোন রুমে কোন কালার এর রং ব্যবহার করা উচিত।

null 12

বসার ঘর কিংবা ড্রয়িংরুমে কোন রং ব্যবহার করবেন?

বসার ঘর বড় হলে গাঢ় রং ব্যবহার করুন৷ আপনি চাইলে কালারফুল রং কমলা, সবুজ রং ব্যবহার করতে পারেন। ফুলের কাজ ও দেখাতে পারেন আপনি।

ডায়েনিং টেবিলে কোন ধরনের রং ব্যবহার করবেন?

ডায়েনিং টেবিলে হালকা রং ব্যবহার করুন। সেক্ষেত্রে হালকা আকাশী রং ব্যবহার করতে পারেন।

শোবার ঘরে কোন ধরনের রং ব্যবহার করবেন?

আপনার শোবার ঘরে আপনি গোলাপি, সবুজ রং ব্যবহার করতে পারেন।

বাচ্চাদের ঘরে কোন ধরনের রং ব্যবহার করবেন?

বাচ্চাদের ঘরে খেলনা, কার্টুনের পাশাপাশি কালারফুল রং ব্যবহার করুন।

রান্নাঘরে কোন ধরনের রং ব্যবহার করবেন?

রান্নাঘরে কম আলোকিত ঘরে হালকা রং ব্যবহার করুন। রান্নাঘরে একধরনের সাদা অথবা যেকোনো হালকা রং ব্যবহার করুন৷

আপনার ঘরের রং অনুযায়ী আপনি ঘরের ডিমলাইট সেই কালার অনুযায়ী ব্যবহার করুন৷ আর এভাবেই আপনি আপনার ঘরে রং এর ব্যবহার করতে পারেন।

পরিশেষ:

প্রিয় পাঠক, আমরা এই পোস্টে আপনার ঘরের রং, ঘরকে আকর্ষণীয়, সুন্দর, পরিপাটি, পুরাতন ঘরকে নতুন করে আকর্ষনীয়, পড়াশোনার ঘরকে সুন্দর এবং আকর্ষণীয় এবং কোন রুমে কোন ধরনের রং ব্যবহার করা উচিত, তা সম্পর্কে আপনাদের মতামত দিতে পারেন। ধন্যবাদ।